রেজিষ্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেহাল দশা গাছতলায় চলছে পাঠদান কার্যক্রম

0 0

প্রতিনিধিঃ  উপজেলার ইব্রাহিমপুর ইউনিয়নের রেজিষ্টার্ড প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খোলা আকাশের নীচে চলছে কোমলমোতি শিক্ষার্থীদের পাঠদান কর্মসূচী। স্কুলটির এমন জরাজীর্ণ অবস্থা যে, বাহির থেকে দেখে বোঝার কোন উপায় নেই। ভিম, কলাম ও ছাদের ফাটলের কারণে ভয়ে কেউ ভিতরে ঢুকতেও সাহস পায়না। যে কোন মুহুর্তে ভবন ধসে প্রাণহানির মত মারাত্মক দুর্ঘনা ঘটতে পারে।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ১৯৮৪ সালে স্থাপিত এই স্কুলটিতে বর্তমানে ১৮৪ জন ছাত্রছাত্রী ও ৪ জন শিক্ষক রয়েছে। ১৯৯৪ সালে দুই কক্ষ বিশিষ্ট একটি ভবন স্থাপিত হলেও ভবনটিতে বিভিন্ন যায়গায় ফাটল দেখা দেয়ায় ২০০৯ সালে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোতাহারবিল্লা তা পরিত্যাক্ত ঘোষনা করেন। আর তখন থেকেই চলছে খোলা আকাশের নীচে কোমলমতি শিশুদের মানবেতর পাঠদান। রোদ, বৃষ্টি কিংবা ঝড়ের কারণে অভিভাবক তাদের ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠিয়ে প্রতিনিয়তই আতঙ্কে থাকে বলে শিক্ষার্থীর সংখ্যাও দিন দিন কমে যাচ্ছে। নবীনগর পৌর এলাকার পার্শ্ববর্তী ইব্রাহিমপুর গ্রামের এই রেজিষ্টার্ড স্কুলটির এমন বেহাল দশা দেখে বোঝা যায় যে, পুরো এলাকার চিত্র কি হতে পারে ! স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা মাকসুদা বেগম বলেন, যথাযথ কর্র্তৃপক্ষের নিকট দরখাস্ত দেয়ার পর আশ্বস্ত করলেও, অদ্যবধি কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। এভাবেই খোলা আকাশের নীচে প্রায় চার বছর ধরে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। উপজেলা শিক্ষা অফিসার শারিফ রফিকুল ইসলাম বলেন, উপজেলার ইব্রাহিমপুর, বড়াইল উত্তর ও শিতারামপুর এই তিনটি স্কুলকে ইতিমধ্যে পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়েছে এবং শিক্ষা কমিটিকে বিষয়টি অবগত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা চেয়ারম্যান জিয়াউল হক সরকার আশ্বস্ত করে বলেন, বিষয়টি আগে আমাকে জানানো হয়নি, তবে অচিরেই পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।    

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares