মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে অপশক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে হবে-বাহাউদ্দিন এমপি

0 0

৮ ডিসেম্বর ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত দিবস ও ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্তরে সপ্তাহ ব্যাপি মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার পঞ্চম দিনের আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় মেলা উদযাপন পরিষদ কর্তৃক অয়োজিত পঞ্চম দিনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনায় অংশ গ্রহন করেন, কেন্দ্রীয় একাত্তুরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নিবার্হী সভাপতি শাহরিয়ার ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক কাজী মুকুল, আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিষ্টার তুরিন আফরোজ, জেলা একাত্তুরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি কবি জয়দুল হোসেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী মন্টু। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতা কামরুজ্জামান আনসারী। সভায় সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার আলোচনা উপ কমিটির আহবায়ক এড. মাহবুবুল আলম খোকন। সভা পরিচালনা করেন যুব নেতা উপাধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন ব্যপারী। সভায় প্রধান অতিথি মহান মুক্তিযুদ্ধে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন রনাঙ্গনের তার যুদ্ধের স্মৃতির কথা উল্লেখ করে বলেন, আমাদের নতুন প্রজন্ম ৭১ মুক্তিযুদ্ধের কেন প্রয়োজন ছিল তা জানেনা। তাদেরকে তা জানাতে হবে। নতুন প্রজন্মকে স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে। তাদের জনাতে হবে ২৩ বছর পাকিস্থান শাসনামলে কোন বাঙ্গালী সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে উচ্চ প্রর্যায়ে আসিন হতে পারেনি। ২৩ বছর পাবিস্থানী শাসক গোষ্ঠি আমাদের শাসনের নামে শোষন করেছে। তারা আমাদের ভাষা ও সংস্কৃৃতির উপর আঘাত করেছে। তাই বাঙ্গীল স্বাধীকার ও অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য আমাদের স্বাধীনতা প্রয়োজন ছিল। তিনি বলেন বঙ্গবন্ধু স্বপ্ন দেখতেন একটি সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশের। শিক্ষিত, অর্থনৈতিক ভাবে স্বাবলম্বী স্বাধীন সার্বভৌম দেশের নাগরিক হিসেবে বাঙ্গালী জাতি বিশ্ব দরবারে মাথাউচু করে দাড়াবে।  বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্ন আজ পূরণ হয়েছে। আমরা এখন স্বাধীন সার্বভৌম জাতি। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের  কোন পরাশক্তিকে ভয় পায় না। তিনি বলেন ৭১ থেকে এখন পর্যন্ত স্বাধীনতা বিরোধীরা একের পর এক ষড়যন্ত্র করছে যাতে বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে মাথা উচু করে দাড়াতে না পারে। কিন্তু তাদের স্বপ্ন একাত্তুরেও পূরন হয়নি এখনও পূরন হবে না। বক্তব্যে তিনি আরো বলেন বিএনপি স্বাধীনতার পর রাজাকারদের পূর্নবাসন করেছিল। এখন তারা জোট বেধে সরকারে বিরুদ্ধে সন্ত্রসী কর্মকান্ড করছে। তাদের সকল অপশক্তি প্রতিহতে করতে হলে আমাদের সাংগঠনিক শক্তি বাড়াতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের সকল স্বপক্ষর শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে তাদের বিরুদ্ধে দূর্বার প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন বাংলাদেশ এখন আর তলা বিহিন ঝুড়ি নয়। দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্র্ন। আমাদের অর্থনৈতিক উন্নতি হচ্ছে। জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০২১সালের মধ্যে আমরা একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিনিত হব। আমাদেরএখন সেই লক্ষের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। মেলায় তিতাস ললিত কলা একাডেমী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, বিশিষ্ট কণ্ঠ শিল্পী ও মুক্তিযোদ্ধা শিল্পী সেহেলী মাসুদের সংঙ্গীত পরিচালনায় এবং সম্পাদক আনিছুল হক রিপন এর উপস্থাপনায় সংঙ্গীত পরিবশেন করেন সেহেলী মাসুদ, মুনা, ছোঁয়া, মাহি, চিন্ময়, আশা, শাহজাহান, রাজ, প্রত্যয়, রানী ও পরশমনি। কির্বোডে  ছিলেন আব্দুর রাহিম, তবলায় দিলিপ বনিক ও প্রতীক থিয়েটারের পরিবেশনায় নাট্যানুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। মেলায় অংশ দর্শক সমাগম হয়। আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন সন্ধ্যায় মেলা চলবে। মেলায় প্রতিদিন দেশ বরণ্যে ব্যক্তিদের অংশ গ্রহনে আলোচনা সভা ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares