ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ ‘আত্মগোপনে’ আছেন, ধারণা ইসি আনিছুরের

0 0

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ ‘আত্মগোপনে’ আছেন বলে মনে করছেন নির্বাচন কমিশনার আনিছুর রহমান। তিনি বলেন, পারিপার্শ্বিক যে কথাগুলো আসছে, যেগুলো ভাইরাল হয়েছে, তাতে মনে হচ্ছে তিনি আত্মগোপনে আছেন।

মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তবে সরকারি কোনো বাহিনী এ কাজটা করেনি বলে জানান এই নির্বাচন কমিশনার। প্রার্থীকে খুঁজে না পাওয়ায় ভোটের মাঠে নতুন মেরূকরণ হবে না বলেও মনে করেন তিনি।

বিএনপির সংসদ সদস্যের পদত্যাগে শূন্য হওয়া ৬ আসনে বুধবার (১ ফেব্রুয়ারি) উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তবে ভোটের এক দিন আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনে প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

পরিবারের সদস্যরা বলছেন, গত শুক্রবার রাত থেকে তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না তারা। তিনি নিখোঁজ রয়েছেন। বিএনপি থেকে বেরিয়ে আসা নেতা উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু আসিফ আহমেদ।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া অডিও ক্লিপের প্রসঙ্গ টেনে এই কমিশনার বলেন, সেখানে যেসব কথাবার্তা অন্যান্য যে মিডিয়ার সঙ্গে বলেছে, তাতে তো মনে হয় এ রকম একটা পরিকল্পনা আগেই করা ছিল। সেটাই ঘটেছে এ রকম অনুমান করাই যায়।

নিখোঁজ প্রার্থীকে খুঁজে বের করার নির্দেশ ছিল জানিয়ে এ কমিশনার বলেন, ‘গণমাধ্যমের সামনে এসে সে বলবে কোথায় কীভাবে গিয়েছিল। আমাদের কাছে এটুকু তথ্য আছে, সরকারি কোনো বাহিনী এ কাজটা করেনি।’

আনিছুর রহমান বলেন, একটা লোক যদি লুকিয়ে থাকে ইচ্ছা করে, তাহলে তাকে খুঁজে বের করা একটু ডিফিকাল্ট।

নির্বাচন কমিশনের কাছে যে তথ্য-উপাত্ত আছে, তার ওপর ভিত্তি করে এই কমিশনার বলেন, ‘তাতে এরকমই ধারণা জন্মে সম্ভবত সে… অডিওটা যে শুনেছি। সেই অডিওতে এরকমই আছে। তার স্ত্রীর নামে তিনি তার কণ্ঠে নির্দেশনা দিচ্ছিলেন: কী নিয়ে যেতে হবে। সিসি ক্যামেরা বন্ধ করে দিতে বলেছে। ১০ মিনিট পর বের হয়ে গেলে চালু করতে, তার মানে কী? মানে হচ্ছে, একটা পরিকল্পনা তারা করেছে। এটাই আমরা অনুমান করছি। এরকম মনে হচ্ছে।’

নিখোঁজ প্রার্থীর অন্য কোনো উদ্দেশ্য থাকতে পারে দাবি করে এ কমিশনার বলেন, নিজের গুরুত্ব বাড়ানোর জন্য। তিনি নিজেও বলেছেন তাকে হুমকি দেয়া হচ্ছে।

প্রার্থী খুঁজে না পাওয়ায় ভোটের মাঠে ভিন্ন মেরূকরণ করবে কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় না তেমন কিছু হবে। খুব বেশি যে প্রভাব পড়বে এরকম কিছু না। কারণ, তিনি থাকলে তাতে কী হবে, না থাকলে কী হবে। তার স্ত্রী তার পক্ষে সব কাজ করে যাচ্ছেন।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উপনির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা আবু আসিফ আহমেদের নিখোঁজের ঘটনা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা মূলত একটা রিপোর্ট চেয়েছিলাম। ডিসি, এসপি, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের কাছে আমরা একটা রিপোর্ট চেয়েছিলাম। গণমাধ্যমে দেখে আমরা স্ব-উদ্যোগে কথা বলেছিলাম। সে কারণেই আমরা চাইলাম কী ঘটেছে, সেটার রিপোর্ট চেয়েছি। আপনারা (সাংবাদিকরা) যা লিখেছেন সেটাই পাঠিয়েছে।’

আবু আসিফ আহমেদ কোথায় আছে সেটা একবার লোকেট করা গিয়েছিল জানিয়ে এ কমিশনার বলেন, ‘পরে আর লোকেট করা যায় নাই। যেহেতু তার ব্যবহৃত লোকেটটা সুইস অফ ছিল। পুলিশ, র‌্যাবসহ অন্যান্য এজেন্সি প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।’

ছয় আসনে ভোটের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে ইসি আনিছুর রহমান বলেন, ‘যথারীতি আগে অন্যান্য জায়গায় যেরকম সব প্রস্তুতি আছে। খালি একটাই নাই, সিসি ক্যামেরার ব্যবস্থা করি নাই। বাকি সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। সুষ্ঠু সুন্দর নির্বাচন করার জন্য যা যা করা দরকার, সব ধরনের প্রস্তুতি আমরা নিয়েছি। ভোটকেন্দ্রে নিরবচ্ছিন্নভাবে সাড়ে আটটা থেকে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত ভোট চলবে। ইভিএমে ভোট দেয়ার জন্য ভোটার এডুকেশন যথেষ্ট করা হচ্ছে।’-সূত্র: সময় নিউজ

 

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares