নাসিরনগর::ইউপি চেয়ারম্যান ও দুই সদস্যের বিরুদ্ধে অর্থ আত্ম¡সাতের অভিযোগ

0 0

মোঃ আব্দুল হান্নান- ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার পূর্বভাগ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন হাজারী, মহিলা সদস্য রোকেয়া বেগম, ও বিষ্ণু দেব মিলে ইউনিয়ন পরিষদের নামে বরাদ্দকৃত কর্মসূচি প্রকল্পের প্রথম ধাপের ৯ লক্ষ দ্বিতীয় ধাপের ১৬ লক্ষ কাবিখা প্রকল্পের প্রথম ধাপের ১০ টন দ্বিতীয় ধাপের ৭ টন মাল।  অপরদিকে স্পেশাল কর্মসূচির নামে বরাদ্দ ১ লক্ষ টাকা, এ ডি পির কালভার্ট নির্মাণের ৯৬ লক্ষ টাকা ও ১% বরাদ্দের ২ লক্ষ টাকা বিভিন্ন প্রকল্পের নামে উত্তোলন করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মহিদুল আলমের সহযোগিতায় নামে মাত্র কাজ করে সমূদয় অর্থ ও মালামাল ৩ জনে মিলে আত্মসাত করার অভিয়োগ পাওয়া গেছে। এই বিষয়ে ইউনিয়নের কোয়রপুর গ্রামের বাসিন্দা মৃত সিরাজ আলীর ছেলে মোঃ ফুল মিয়া বাদী হয়ে জেলা দূর্ণীতি দমন কমিশন সহ বিভিন্ন জায়গায় লিখিত অভিযোগ দাখিল করে ।

জানা গেছে পূর্বে ও অত্র ইউনিয়নের সদস্য মোঃ ইয়াছিন মিয়া উক্ত প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মহিদুল আলমের যোগসাজশে মৎস্য অধিদপ্তরের সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা ও ১৮ মেট্রিক টন সরকারী গম আত্ম¡সাৎ করে।

ওই বিষয়ে এলাকা বাসীর লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে মাননীয় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী এডঃ ছায়েদুল হকের নির্দেশে, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী মোয়াজ্জম আহম্মদ বিষয়টি প্রকাশ্যে ও গোপনে তদন্ত করে।এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তাচৌধুরী মোয়াজ্জেম আহমদের সাথে যোগাযোগ করে অভিযোগ সর্ম্পকে জানতে চাইলে তদন্তে অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হয়েছে বলে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান।

মোঃ ফুলমিয়ার অভিযোগের বিষয়ে চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন হাজারী ইউপি সদস্য রোকেয়া বেগম ও বিষ্ণুদেবের  সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তারা অভিযোগটি মিথ্যা বলে দাবী করে।

অভিযোগ কারী ফুল মিয়া জানান, চেয়ারম্যান মেম্বারদের নগদ অর্থ ও সরকারী মালামাল আত্ম¡সাত লুটপাটের বিষয়ে এডভোকেট রাখেশ সরকারের বাড়ীতে ওয়ার্ডের জনগণ বসে এক জরুরী মিটিং করে । মিটিংয়ের পর থেকে অভিযুক্তরা ফুল মিয়াকে মারপিট সহ বিভিন্ন মিথ্যা মামলা ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকি প্রদান করে। ফুল মিয়া আরো জানান  অভিযোগ করে অভিযোগকারীদের ভয়ে তিনি ও তার পরিবার পরিজন চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভূগছে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ মহিদুল আলমের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে অভিযোগের সত্যতা সর্ম্পকে জানতে চাইলে তিনি বলেন বিধি মোতাবেক কাজ হয়েছে।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares