পারিবারিক কলহের জের— সরাইলে শিশু সন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

0 0

সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে পারিবারিক কলহের জের ধরে নিজের শিশু সন্তান সামিম (৮ মাস) কে গলাটিপে হত্যার পর আত্মহত্যা করেছেন মা প্রবাসী স্বামীর স্ত্রী বিনা বেগম (২৫)। মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে হাসপাতালের বিছানায় যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে বিনার আরেক কন্যা শিশু সামিরা (০৭)।  গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল দশটায় সরাইল সদর ইউনিয়নের সৈয়দটুলায় বিনার বাবা মরম আলীর বাড়িতে এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনার পর সহস্রাধিক উৎসুক নারী পুরুষ ভির জমায় নিহত মা ছেলেকে এক নজর দেখার জন্য। ওই বাড়িতে ছুটে আসেন নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারি পুলিশ সুপার (সার্কেল) শাহআলম বকাউল ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আলী আরশাদ। নিহতের পরিবার ও স্থানীয় লোকজন জানায়, গত ৮/৯ বছর পূর্ব কুট্রাপাড়ার জুরু মিয়ার সৌদী প্রবাসী ছেলে মিলন মিয়ার সাথে বিয়ে হয় সৈয়দটুলা গ্রামের মরম মিয়ার কন্যা বিনা বেগমের। তারা সম্পর্কে ফুফাত ভাই মামাত বোন। বিয়ের পর তাদের ঘরে জন্ম নেয় সামিরা ও সামিম নামের দুই সন্তান। শ্বাশুড়ি শুন্য পরিবারে স্বামীর অনুপস্থিতিতে শ্বশুড় বাড়িতে দেবরের সাথে সম্পর্ক ভাল যাচ্ছিল না গৃহবধু বিনার। দেবর ছোটন প্রায়ই ছোট খাট বিষয় নিয়ে ভাবীর সাথে ঝগড়া বিবাদ করত। মাঝে মধ্যে মারধোর ও সহ্য করতে হত বিনাকে। সপ্তাহ খানেক আগে প্রবাস থেকে বড় ভাই মিলনের টাকা পাঠানোর বিষয় নিয়ে ভাবী বিনার সাথে বাক-বিতন্ডা হয় দেবর ছোটনের। এক পর্যায়ে ছোটন উত্তেজিত হয়ে তার বাবার সামনেই বিনাকে থাপ্পর মারে। এতে মানসিক ভাবে ভেঙ্গে পড়ে বিনা। বর্তমানে বিনার স্বামী ও শ্বশুড় দুজনই রয়েছেন প্রবাসে। ক্ষোভে দুঃখে ৩/৪ দিন আগে স্বামীর বাড়ি থেকে বিনা চলে আসে বাবার বাড়ি সৈয়দটুলায়। বিনার বড় ভাই আবদুর রউফেরে সাথে গত বুধবার তার কথা কাটাকাটি হয়। সকল বিষয় বিনা তার প্রবাসী স্বামীকেও জানিয়েছিল।  গতকাল সকাল দশটায় ভিতর থেকে সিটকারি লাগানো বিনার কক্ষ থেকে সামিরা বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করতে থাকে। বাচ্চাটির আর্তচিৎকারে বাড়ির লোকজন দৌড়ে গিয়ে দেখেন দরজাটি ভেতরের দিকে লাগানো। পরে সিটকারি ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করে লোমহর্ষক দৃশ্য দেখে অনেকে হয়ে যান বাকরুদ্ধ। কেউ কেউ হারিয়ে ফেলেন জ্ঞান। মেঝেতে পড়ে আছে শিশু পুত্র সামিমের নিথর দেহ। সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছে মা বিনা বেগমের লাশ। লোকজনের উপস্থিতি টের কোন রকমে প্রাণ বাঁচিয়ে খাটের নীচে আশ্রয় নেওয়া বিনার কন্যা শিশু সামিরা বেড়িয়ে এসে চিৎকার দিয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। তার শরীরের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে আঘাতের চিহ্ন। সামিরা বর্তমানে সরাইল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। বিনার বাবা মরম আলী (৬২) কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, দেবর ছোটন সহ স্বামীর পরিবারের লোকজনের নির্মম নির্যাতন ও অত্যাচারে আমার মেয়ে মানসিক যন্ত্রনায় ভোগছিল। অনেক কথা আমি প্রকাশ্যে বলতে পারছি না। এ বিষয়ে আমি অবশ্যই আইনের আশ্রয় নিব। সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আলী আরশাদ বলেন, নিজের বাচ্চাকে মেরে মায়ের আত্মহত্যার খবর পেয়ে ছুটে এসেছি। এর পেছনে কি রহস্য বা কারন আছে তদন্ত করে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নিব।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares