ঘাতক মা গ্রেফতার

0 0
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে ঋণের চাপে পাঁচ বছর বয়েসী শ্রাবন্তী সূত্রধর নামে নিজের কন্যাসন্তানকে কুপিয়ে হত্যা করেছেন এক মা। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক মা মুক্তা রানী সূত্রধরকে (৩০) গ্রেফতার করেছে। আজ বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার অরুয়াইল গ্রামে নিজের সন্তানকে কুপিয়ে হত্যা করার দায়ে রতন সূত্রধর তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে ময়না তদন্ত সম্পন্ন করেছে।
নিহতের পরিবার ও পুলিশ জানায়, সরাইল উপজেলার অরুয়াইল গ্রামের রতন সূত্রধরের স্ত্রী মুক্তা রাণী সূত্রধর গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ২০ হাজার টাকা ঋণ গ্রহণ করে। এই টাকা তার প্রতিবেশী শঙ্করী রাণী সূত্রধরের কাছে লগ্নী করে। এজন্য গ্রামীণ ব্যাংককে সপ্তাহে ৫৫০ টাকা কিস্তি দিতে হতো মুক্তা রাণী সূত্রধরকে। সম্প্রতি শঙ্করী রাণী সূত্রধর এলাকা ছেড়ে পার্শ্ববর্তী কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরববাজার এলাকায় গিয়ে বাসা ভাড়া করে অবস্থান করছে। এতে করে পুরো ঋণের চাপ পড়ে মুক্তা সূত্রধরের উপর। তার স্বামী রতন সূত্রধর একজন দিনমজুর। তার পক্ষে সংসার চালিয়ে প্রতি সপ্তাহে ৫৫০ টাকার কিস্তি পরিশোধ করা নিতান্তই দু:সাধ্য। এ নিয়ে তাদের সংসারে নেমে আসে চরম অশান্তি। আজ বৃহস্পতিবার ছিলো ঋণের কিস্তি প্রদানের নির্ধারিত দিন। আগের সপ্তাহে গ্রামীণ ব্যাংকের লোকেরা ঋণের জন্য মুক্তাকে চাপ দিয়ে যায়। এই সপ্তাহে কিস্তির টাকা এবং ঋণের টাকা পরিশোধ না করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়ে যায়। এ নিয়ে গতকাল বুধবার রাতে তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বচসা হয়। আজ বৃহস্পতিবার সকালে ঘুম থেকে উঠেই বটি হাতে নিয়ে পাঁচ বছরের কন্যা সন্তান শ্রাবন্তীর মুখে ও গলায় কুপাতে থাকে। এতে ঘটনাস্থলেই শ্রাবন্তী মারা যায়। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধারসহ ঘাতক মাকে গ্রেফতার করে।
জানতে চাইলে সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গিয়াস উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘রতন সূত্রধরের স্ত্রী মুক্তা রাণী সূত্রধর সকাল সাতটার দিকে রাগের মাথায় তার পাঁচ বছর বয়েসী মেয়েকে বটি দিয়ে মুখে ও গলায় কোপাতে থাকে। এতে ঘটনাস্থলেই শিশুটির মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় রতন সূত্রধর বাদী হয়ে তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।’

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares