সরাইলের প্রধান সড়কে বৃষ্টি হলেই হাঁটু পানি : জনদূর্ভোগ চরমে

0 0
সরাইল প্রতিনিধি ॥ সরকারী জায়গায় পানি নিস্কাশনের জলাশয় ভরাট করে দোকান ও মার্কেট নির্মাণ করায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার প্রধান সড়কে বৃষ্টি হলেই হয়ে যায় হাঁটু পানি। সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতার। জনদূর্ভোগ চরম আকার ধারন করে। ফলে সড়কে চলাচলকারী স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ পথচারীদের কষ্টের সীমা থাকে না। যান চলাচলে বিঘœ ঘটছে। সড়কের আশপাশের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। দেখার কেউ নেই। উপজেলার দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা রয়েছেন অদৃশ্য কারণে নীরব।
এলাকাবাসী জানান, সরাইল অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মোড় সদরের বিকাল বাজার এলাকায় উপজেলার প্রধান সড়কের পাশে জেলা পরিষদ মালিকানাধীন জলাশয়ের জায়গা ভরাট করে দোকান ও মার্কেট নির্মাণ করা হয়েছে।। ভুক্তভোগী স্থানীয়রা জানান, যুগ যুগ ধরে এ জলাশয় দিয়ে উপজেলা সদরের বিকালবাজারসহ আশপাশ এলাকার পানি নিস্কাশন হয়ে আসছে। সম্প্রতি প্রভাবশালী লোকেরা ক্ষমতার দাপটে বহুবছরের পুরনো ড্রেন (জলাশয়) ভরাট করে দোকান নির্মাণ করেন। গত ক’দিনের বৃষ্টিতে পানি নিস্কাশন বন্ধ হয়ে সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।
বিকাল বাজার এলাকার ব্যবসায়ী মো. আমিরুল মিয়া ও মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, সম্প্রতি হঠাৎ করে প্রভাবশালীরা দাপট দেখিয়ে কয়েকশত বছরের পুরনো জলাশয় (ড্রেন) ভরাট করে ফেলে। এতে সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। দোকানের ভিতরে পানি ঢুকেছে। ব্যবসা পুরোপুরি বন্ধ রয়েছে। বেশ কয়েকটি দোকানের সামনে দুই ফুট উঁচু দেওয়াল নির্মান করা হয়েছে। সরাইল সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার সরকারি জায়গায় বহুতল ভবন নির্মানের কারনে প্রধান সড়কে জলাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই মার্কেটের দোকান গুলি লাঠিয়াল বাহিনীর নিকট ভাড়া দেয়া হয়েছে। তাদেরকে জলাবদ্ধতার দূরিকরনে ব্যবস্থা নিতে বললে তারা উল্টো আমার উপর চড়াও হয়েছে। বিষয়টি আমি নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানিয়েছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু সাফায়াৎ মুহম্মদ শাহে দুল ইসলাম বলেন, জলাশয় ভরাট হয়ে যাওয়ায় ওই সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে জরুরি ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares