জেলা বিএনপির উদ্দ্যোগে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এর ৩৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

0 0

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির উদ্দ্যোগে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদীদল (বিএনপি) এর ৩৭ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত। বিকাল ৫ ঘটিকায় শহরের প্রধান সড়ক টি.এ রোডস্থ স্বপ্নীল কমিউনিটি সেন্টারে আলোচনা সভা, দোয়া ও অনুষ্ঠান কেক কেটে পালিত হয়।
জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান মোল্লা কচির সভাপতিত্বে ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো: জহিরুল হক খোকন জহিরের সার্বিক পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামল, সাবেক সভাপতি জিল্লুর রহমান, সাবেক সহ-সভাপতি হাজী জাহাঙ্গীর, সহ-সভাপতি এড: শফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি এড: গোলাম সারোয়ার খোকন, সহ-সভাপতি আব্দুল্লাহ আল বাকী, সাবেক সহ-সভাপতি ও আইনজীবি সমিতির সভাপতি এড: আব্দুল মান্নান, জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক এড: আনিসুর রহমান মঞ্জু, সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও আইনজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড: তরিকুল ইসলাম খান রুমা, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, আলহাজ্ব এবিএম মোমিনুল হক, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো: আজিম, জেলা শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক মো: হেবজুল বারী, জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী এড: ইসমত আরা, জেলা যুবদলের আহ্বায়ক হাজী মনির হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ও সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আজম ও জেলা ছাত্রদল সভাপতি মো: শামীম মোল্লা প্রমুখ। মোনাজাত পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মো: শরীফ উদ্দিন।
বক্তারা তাদের বক্তব্যে বলেন, বিএনপি সৃষ্টির পর সব চাইতে ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।
বক্তারা আরো বলেন, মৃত প্রায় গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবিত করতে সরকারকে দ্রুত নির্বাচন আয়োজনের পথ প্রশস্ত করার আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, দেশে আজ গণতন্ত্র বিপন্ন, স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বও হুমকির মুখে। ৫ই জানুয়ারী তামাশার নির্বাচনের পর গণতন্ত্র এখন মৃত প্রায়। দেশ বিরোধী বিভিন্ন চুক্তি ও কর্মকান্ডের মাধ্যমে বর্তমান সরকার জাতীয় স্বার্থকে জলাঞ্জলী দিয়ে চলছে। দেশে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারণ করছে। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ভূনন্ঠিত করার জন্য নির্লজ্জ দলীয় করণের চূড়ান্ত রূপ দিতে বিচারকদের অভিশংসনের ক্ষমতা জাতীয় সংসদের কাছে ন্যস্ত করার আইন করা হয়েছে। প্রধান মন্ত্রীকে রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্টানে উর্ধ্বে নিরস্কুষ ক্ষমতা অধিকারী করার জন্যেই এ আইন পাশ করা হয়েছে। জনপ্রশাসন আজ্ঞাবহ ও স্থবির হয়ে পড়েছে। জনমতের প্রতিফলন যাতে না ঘটে সেজন্য গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করতে জাতীয় সম্প্রচার নীতি প্রণয়ন করা হয়েছে।
প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীদের ত্যাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং যারা ইন্তেকাল করেছে তাদের রূহের মাগফেরাত কামনা করেন। প্রেস রিলিজ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares