“ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জামায়াতের সাধারণ সম্পাদককে সদর থানা পুলিশ কর্তৃক আটক প্রসংগে”প্রেস বিজ্ঞপ্তি

0 0

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২নং পুলিশ ফাঁড়ির টিএসআই মোঃ আবুল কাশেম, সঙ্গীয় ফোর্সসহ মোবাইল-১ এর অফিসার ও ফোর্স গত ১৯ ডিসেম্বর ২০১৪খ্রিঃ অনুমান ০২.০৫ টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, শহরের পশ্চিম মেড্ডা হোসেন মঞ্জিলের ৩য় তলায় কর্ণারের রুমে জামায়াত-শিবিরের কিছু সংখ্যক নেতা-কর্মী সরকারী বিরোধী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ করার উদ্দেশ্যে গোপনে সমাবেশ করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ অফিসার ও ফোর্স ঘটনাস্থলে উপস্থিত হওয়া মাত্রই তথায় অবস্থানরত নেতা-কর্মীরা দ্রুত পালানোর চেষ্টাকালে কাজী ইয়াকুব আলী (৪২) (ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জামায়াতের সাধারণ সম্পাদক) পিতা-মৃত কাজী আঃ কাদের, সাং-শিকারপুর, থানা-কসবা, বর্তমানে পশ্চিম মেড্ডা হোসেন মঞ্জিল ৩য় তলার পূর্বপার্শ্বের ভাড়াটিয়া, থানা ও জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়াকে আটক করে তার নিকট হতে ১। ইসলামী আন্দোলন ও সংগঠন বই ০১টি, ২। রুক নিয়তের দায়িত্ব ও মর্যাদা বই ০২টি, ৩। গঠনতন্ত্র ও জামায়াত ইসলামী বই ০১টি, ৪। জামায়াত ইসলামী নিশ্চিহ্ন করার আওয়ামী ষড়যন্ত্র বই ০৪টি, ৫। রুক নিয়তের আসল চেতনা বই ০৩টি, ৬। বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী রিপোর্ট বই ০১টি, ৭। বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামী লেখা ০৮টি লিফলেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উল্লিখিত বইগুলোতে সরকার বিরোধী বক্তব্য রয়েছে। যা সরকার তথা দেশের বিরুদ্ধে ধ্বংসাত্মকমূলক কর্মকান্ডের উসকানী দেয়। আটককৃত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জামায়াতের সাধারণ সম্পাদককে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে জানায় সরকার বিরোধী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ করার লক্ষে ১। মাওলানা আবু নছর (৫২), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-নবীনগর পৌরসভা, থানা-নবীনগর, জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ২। শহিদুল ইসলাম (৫৮), পিতা-মৃত মুক্তল হোসেন, সাং-বাসা নং-৪০১ মধ্য মেড্ডা, থানা ও জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ৩। মোতালিব (৬০), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-তুলাতলা, থানা-আখাউড়া, বর্তমানে তালশহর থানা ও জেলা-ঐ, ৪। ফয়জুল করিম মনোয়ার (৪৫), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-মাছুম মঞ্জিল কুমারশীল মোড়, থানা ও জেলা-ঐ, ৫। আক্তার হোসেন (৪২), পিতা-অজ্ঞাত, সাং-তিতাসপূর্ব এলাকা, থানা-বিজয়নগর, বর্তমানে পুনিয়াউট, থানা ও জেলা-ঐ, ৬। কাজী সিরাজ (৪৫), পিতা-কাজী আঃ মমিন, সাং-শাহপুর, থানা-কসবা, জেলা-ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১৫ জন নেতা-কর্মী সমাবেশ করছিল বলে জানায়। সে আরো জানায় যে, সমাবেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাসহ সকল থানা এলাকার বিভিন্ন স্থানে লিফলেট বিতরনসহ আগামীতে সরকারী বিরোধী ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ কখন কোথায় করবে তাও আলোচনা করছিল। এ সংক্রান্তে আটককৃত ব্যক্তি বিরুদ্ধে যথাযথ আইনের মামলা রুজু করা হয়েছে।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares