হঠাৎ বন্ধু প্রতিম ভারতের প্রতি ক্ষেপেছেন ওবায়দুল কাদের

0 0

ডেস্ক ২৪: এবার বন্ধু প্রতিম ভারতের প্রতি ক্ষেপলেন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। নয়া দিল্লির দেয়া বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ভারতকে মনে রাখতে হবে,আমাদেরকেও আমাদের দেশের জনগণের কাছে জবাবদিহি করতে হয়।

বন্ধুত্ব একপাক্ষিক হয় না। দুই দিক থেকেই সমান অবদান থাকতে হয়। ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনারের সামনেই এই ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ বুধবার ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথি উপলক্ষে আয়োজিত শোভাযাত্রার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দিরের পাশে পলাশী মোড়ে মহানগর সর্বজনীন পূজা কমিটি ও বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সেখানে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, ভারতীয় ডেপুটি হাইকমিশনার সন্দীপ চক্রবর্তী, সাংসদ মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন এবং হিন্দুসম্প্রদায়ের নেতা মনিন্দ্র কুমার নাথ, বাসুদেব দাস প্রমুখ।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার ভারতের প্রতি বন্ধুত্বের উদার হস্ত প্রসারিত করেছেন মন্তব্য করে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন,তাদের(ভারতের) কাছ থেকেও আমরা সৎ প্রতিবেশীমূলক আচরণ আশা করব।

তিস্তা ও সীমান্ত চুক্তি না হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, হিন্দী ভাষী অঞ্চল থেকে এই বাধা এলে একটা কথা ছিল। আমরা এভাবে ব্যথা পেতাম না। কিন্তু আমাদের নায্য হিস্যা আদায়ের এই বাধা এসেছে বাংলা ভাষী অঞ্চল থেকে।

তিনি আরো বলেন,এপার বাংলা-ওপার বাংলা বলে যখন আমরা শান্তি পাই,সাবেক পূর্ব বাংলা আর পশ্চিম বাংলা বলে যখন আমরা অনুপ্রেরণা লাভ করি। তখন পশ্চিম বাংলার এই আচরণ প্রত্যাশিত নয়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশে যোগাযোগমন্ত্রী বলেন, আপনি মা মাটি ও মানুষের নেত্রী বলে দাবি করেন। তাই আশা করব, অগণিত বাঙালির চাওয়া বুঝিয়ে দেয়ার ব্যাপারে কেন্দ্রীয় সরকারকে আন্তরিকভাবে সহযোগিতা করবেন।

মন্ত্রী এ সময় আরো বলেন, বাংলাদেশের হিন্দুদের আমরা সংখ্যালঘু হিসেবে দেখি না। তাদের সব দাবি পূরণের চেষ্টা করি। কিন্তু ভারতের মুসলমানদের সেভাবে দেখা হয় না। শ্রীকৃষ্ণের জন্মতিথির সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, শ্রীকৃষ্ণ অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের বিজয়ের জন্য, অশুভের বিরুদ্ধে শুভের বিজয়ের জন্য, অশান্তির বিরুদ্ধে শান্তির বিজয়ের জন্য লড়াই করেছেন। শ্রীকৃঞ্চের জন্মদিনে সেই চেতনায় উদ্বুদ্ধ হতে হবে।

বাচ্চু দেব দাশ জন্মাষ্টমী মিছিলের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন । অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতা সেক্টর কামান্ডার সি আর দত্ত। উদ্বোধন অনুষ্ঠানের পর বিশাল একটি শোভাযাত্রা বের হয়। ঢাক-ঢোল পিটিয়ে নেচে-গেয়ে শ্রীকৃষ্ণের ভক্তরা পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্ক পর্যন্ত ওই শোভাযাত্রায় অংশ নেয়।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares