ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা বিএনপির সভাপতি সাধারণ সম্পাদক সহ ৪২ জন নেতা কর্মীকে জেলে প্রেরণের তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন।

0 0

nindaবর্তমান ফ্যাসিষ্ট স্বৈরাচারী সরকার দমন পীড়নের মাধ্যমে বিরোধী দল-মত দমনের ধারাবাহিকতায় বিগত সরকার বিরোধী আন্দোলনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়াতে স্তব্দ করার লক্ষ্যে জেলা বিএনপি তার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অসংখ্য নেতা কর্মীর নামে মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন একাধিক মামলার দায়ের করে।

গতকল্য সোমবার জেলা বিএনপির সভাপতি সাধারণ সম্পাদক সহ তার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা আইনের প্রতি পূর্ণ সম্মান শ্রদ্ধা রেখে কোর্টে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করলে তাদের জামীন না মঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

জেলা বিএনপি তার অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের এক যৌথসভায় সরকারের এহেন দমন পীড়ন মামলা ও গ্রেফতার এর কঠোর সমালোচনা করে তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে নিরপরাধ ষড়যন্ত্রের শিকার কারাবন্দি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোঃ জহিরুল হক খোকন জহিরসহ সকল আটককৃত নেতা কর্মীদের অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করে বিবৃতি দেন।

বিবৃতি দাতারা হলেন জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার খালেদ হোসেন মাহবুব শ্যামল, সাবেক সহ-সভাপতি জিল্লুর রহমান, সহ-সভাপতি এডঃ শফিকুল ইসলাম, সাবেক সহ-সভাপতি মোবারক মুন্সি, সাবেক সহ-সভাপতি হাজী মোঃ জাহাঙ্গীর, সহ-সভাপতি এডঃ গোলাম সারোয়ার খোকন, সাবেক সহ-সভাপতি রফিকুল হক, সাবেক সহ-সভাপতি ও জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডঃ আব্দুল মান্নান, যুগ্ম সম্পাদক (১) এডঃ আনিসুর রহমান মঞ্জু, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডঃ তরিকুল ইসলাম খান রোমা, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক হেবজুল বারী, সাবেক দপ্তর সম্পাদক আলহাজ্ব এ.বি.এম মোমিনুল হক, সাবেক যুব বিষয়ক সম্পাদক এমদাদুল হাসান, সাবেক প্রচার সম্পাদক নজির উদ্দিন আহাম্মেদ, সাবেক সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবু শামীম মোঃ আরিফ, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক বাহার চৌধুরী, সাবেক ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মাইনুল ইসলাম চপল, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডঃ শামছুজ্জামান চৌধুরী কানন।প্রেস রিলিজ

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares