আওয়ামীলীগ নেতাদের নিয়ে সাত্তারের নির্বাচনী সভা

0 1

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল ও আশুগঞ্জ) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা উকিল আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার নির্বাচনী প্রচারণা আনুষ্ঠানিক ভাবে শুরু করেছেন। আওয়ামী লীগ নেতাদের নিয়ে নির্বাচনী সভা করছেন তিনি। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার পরমানন্দপুরে নিজের বাবার নামে করা হাজী মকসুদ আলী নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মতবিনিময় সভা হয়। সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে অংশ নেন উপজেলার অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তালেব, পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ।

এ নির্বাচনী সভায় উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নের বরইচারা,পরমানন্দপুর, ফতেপুর, হরিপুর ও ষাটবাড়িয়া এই ৫ গ্রামের প্রায় সহস্রাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

অরুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তালেব বলেন, আবদুস সাত্তার ভূইয়া একজন ভালো মানুষ। উনি জীবনে কারও ক্ষতি করেননি। ১ ফেব্রুয়ারি তিনি বিজয়ী হবেন। আমাদের অরুয়াইল ইউনিয়নের ৯০ ভাগ ভোট কলার ছড়াতে যাবে।

এ আরও সময় উপস্থিত ছিলেন- আবদুস সাত্তার ভূঁইয়ার ছেলে মাইনুল হাসান তুষার, সৌদি আরব বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কামাল হোসেন, পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আহাদ, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাজেদুর রহমান, উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক আহবায়ক রিফাত বিন জিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা কুতুবুল আলম, আইয়ুব খান।

সভায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুস সাত্তার বলেন, আমি বিএনপির হাই কমান্ডের নির্দেশে পদত্যাগ করি। পরে বুঝতে পারি আমি আমার এলাকার জনগণের কাছে দেওয়া ওয়াদা পূরণ করতে পারিনি। তাই আবার স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করতে চাইছি। এজন্য আমি আপনাদের সহযোগিতা চাই। আপনারা কলার ছড়া মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে আবার জয়যুক্ত করেন।
সভার বিষয়ে জানতে চাইলে পাকশিমুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, পাকশিমুল ও অরুয়াইল ইউনিয়ন সবাই সাত্তার সাহেবের নির্বাচনী সভায় অংশ নিয়েছি। আমার পাশের ইউনিয়ন অরুয়াইল আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তালেব সাহেবও এ সভায় অতিথি হিসেবে অংশ নেন। সভায় সাত্তার সাহেব তার পক্ষে সবাইকে ভোট দেওয়ার আহ্বান জানান।

এর আগে ১৪ জানুয়ারি মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন আওয়ামী লীগের তিন নেতা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী, সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক মঈন উদ্দিন মঈন ও শাহজাহান সাজু। বুধবার বিবৃতি দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউল হক মৃধা।

আব্দুস সাত্তারের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়ে গেলেন জাতীয় পার্টির আব্দুল হামিদ ভাসানী, জাকের পার্টির জহিরুল ইসলাম জুয়েল ও আশুগঞ্জ উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি আবু আসিফ আহমেদ।

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

Shares